অল্প পুঁজিতে গ্রামে ব্যবসা করার ১০ টি আইডিয়া

অল্প পুঁজিতে গ্রামে ব্যবসা করার ১০ টি আইডিয়া,মানুষের আত্মনির্ভরশীল হওয়ার ইচ্ছা চিরন্তন। পরিবারের একজন শিক্ষিত ছেলেও পরিবারের বোঝা হতে চায় না। কিন্তু স্বাধীন হওয়া সহজ নয়। বর্তমানে, দেশে বেকার মানুষের সংখ্যা দেখায় যে চাকরি পাওয়া কতটা কঠিন। তবে এটি কেবল স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়া একটি কাজ নয়।

অল্প পুঁজিতে গ্রামে ব্যবসা করার ১০ টি আইডিয়া

অল্প পুঁজিতে গ্রামে ব্যবসা করার ১০ টি আইডিয়া, আজকাল যুবক-যুবতীরা উদ্যোক্তার মাধ্যমে স্বাবলম্বী হওয়ার প্রবণতা দেখায়। কিন্তু এক্ষেত্রে পুঁজি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। পুঁজি কম থাকলে শহরের দিকে ঝুঁকে না গিয়ে এখন গ্রামে বসেই ব্যবসা করে স্বাবলম্বী হওয়া যায়। গ্রামে ব্যবসা করলে একদিকে যেমন কম পুঁজির প্রয়োজন হয়, অন্যদিকে নিজের ঘরে বসে কাজ করা যায়, তেমনি খরচও অনেকাংশে কমে যায়।

আমাদের তরুণ প্রজন্মের সুবিধার্থে, আমাদের আজকের পোস্টে 10টি ব্যবসায়িক আইডিয়া সাজানো হয়েছে যা অল্প পুঁজিতে গ্রামেই করা যায়। আপনি যদি এই পোস্টটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়েন, তাহলে আপনি 10টি ব্যবসায়িক ধারণার বিবরণ সম্পর্কে জানতে পারবেন যা গ্রামে অল্প বিনিয়োগে করা যেতে পারে। তাহলে আর দেরি কেন? চল শুরু করি!

গ্রামে ব্যবসা শুরু করার প্রস্তুতি 

আপনি যদি অল্প পুঁজিতে গ্রামে একটি নতুন ব্যবসা শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন, তবে লেখার শুরুতে অভিনন্দন! একটি নতুন জায়গায় একটি নতুন ব্যবসা শুরু করার উত্তেজনাপূর্ণ অভিজ্ঞতায় স্বাগতম। কিন্তু সুখকে চাপা রেখে পূর্ণ গতিতে আপনার ব্যবসায় নামার প্রস্তুতি শুরু করুন। আপনার পুরো কাজের পরিকল্পনাকে এমনভাবে ভাগ করুন যাতে আপনার পক্ষে সমস্ত কাজ পরিচালনা করা সহজ হয়।

এখন আমরা কিছু ছোট পুঁজি ব্যবসার প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করব যাতে ছোট পুঁজির ব্যবসার প্রস্তুতিতে আপনার পরিকল্পনাগুলি সহজতর হয়।

এমন একটি ব্যবসা বেছে নিন যাতে লাভ করার সম্ভাবনা থাকে

অল্প পুঁজিতে পাইকারি বা খুচরা পণ্য কেনাবেচা করার সময়, প্রথমে নিজেকে জিজ্ঞাসা করুন আপনি নিজে পণ্যটি কিনবেন কিনা। পরবর্তী, আপনি এই পণ্য বিক্রি করে কত লাভ হবে তা চিন্তা করা উচিত. তাছাড়া এই ক্ষেত্রে আরেকটি বিষয় গুরুত্বপূর্ণ, তা হল আপনার বেছে নেওয়া ব্যবসা কতদিন পর্যন্ত আপনাকে মুনাফা দিতে সক্ষম। কারণ ব্যবসায় আপনি শেষ পর্যন্ত লাভ করতে যাচ্ছেন, তাই না?

ব্যবসার জন্য নির্দিষ্ট মূলধন প্রস্তুত করুন

অল্প পুঁজি নিয়েও ব্যবসা শুরু করার প্রস্তুতির সময় একটি স্থায়ী ব্যবস্থার সন্ধান করুন। আপনার নিজের টাকা এক্ষেত্রে ভালো ভূমিকা রাখবে। একটি ব্যবসা শুরু করার পরে মূলধনের অভাব শেষ পর্যন্ত আপনার পরিকল্পনা ব্যর্থ হতে পারে। তাই এ ব্যাপারে সতর্ক থাকুন।

একটি ব্যবসায়িক ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলুন

যেকোনো ধরনের ব্যবসা শুরু করার সঙ্গে সঙ্গে ব্যবসার জন্য যেকোনো ব্যাংকে একটি আলাদা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। ব্যবসার প্রস্তুতির সময় আপনাকে আপনার ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট এবং ব্যবসায়িক ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট আলাদা রাখতে হবে। কারণ এটি একজন ব্যবসায়ীর জন্য একটি পেশাদার পদক্ষেপ। যেকোনো ব্যবসায়িক উদ্যোগে সম্পূর্ণ স্বচ্ছতা এবং পেশাদারিত্ব প্রদর্শন করা উচিত। তাই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য আলাদা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করা খুবই জরুরি।

টিআইএন সহ প্রয়োজনীয় লাইসেন্স 

শহর বা গ্রামে ব্যবসা শুরু করতে লাইসেন্স এবং পারমিটের প্রয়োজন হয়। তাই ব্যবসা শুরু করার জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত লাইসেন্স এবং সার্টিফিকেটের জন্য আবেদন করুন ব্যবসার শুরুতে। এই ব্যবসার লাইসেন্সগুলির মধ্যে, কিছু ক্ষেত্রে স্থানীয় ব্যবসার লাইসেন্সের প্রয়োজন হতে পারে। আবার কিছু ক্ষেত্রে রপ্তানি-আমদানি লাইসেন্স, ভেন্ডর লাইসেন্স ইত্যাদিরও প্রয়োজন হতে পারে। তাছাড়া, ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর (টিআইএন) এবং কর্মচারী শনাক্তকরণ নম্বর (ইআইএন) যেকোনো ব্যবসার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর মধ্যে, আপনার কোম্পানির জন্য প্রযোজ্য আইন প্রয়োগ করুন।

অনলাইন ব্যবসার জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম কিনুন

ঘরে বসে ছোট পুঁজির ব্যবসা করার জন্য অনলাইন ব্যবসা এখন সবচেয়ে জনপ্রিয় উপায়। আপনি যদি একটি অনলাইন ব্যবসা শুরু করতে চান, প্রস্তুতি হিসাবে, ডেস্কটপ, ল্যাপটপ, মোবাইল ফোন, রাউটার, রিপিটার সহ আপনার প্রয়োজনীয় জিনিসগুলির তালিকা করুন। তারপর নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সংযোগ নিশ্চিত করুন এবং ব্যবসায় নেমে পড়ুন।

অল্প পুঁজিতে গ্রামে ১০টি ছোট ব্যবসার আইডিয়া

এ পর্যন্ত আমরা ব্যবসা শুরুর প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করেছি। এখন আমরা 10টি ব্যবসার ধারণা নিয়ে আলোচনা করব যা কম পুঁজিতে গ্রামে করা যেতে পারে। এসব ব্যবসায়িক আইডিয়া কাজে লাগিয়ে বেকারত্ব দূর করা যায়। চল শুরু করি!

নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মুদি দোকানের ব্যবসা

আমাদের জীবনে সব সময় যে পণ্যের প্রয়োজন হয় তাকে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস বলে। এসব পণ্যের মধ্যে রয়েছে চাল ও ডাল, তেল, লবণ, বিভিন্ন ধরনের মশলা ইত্যাদি। ছোট পুঁজির ব্যবসার ধারণা হিসেবে এটি সবচেয়ে ভালো কারণ এসব পণ্যের চাহিদা সবসময় একই থাকে।

মুদি দোকান ব্যবসায় খরচ কম কিন্তু লাভ বেশি। তাছাড়া, আপনার বাড়ি যদি গ্রামীণ এলাকায় হয়, তাহলে মুদি ব্যবসা আপনার জন্য আরও লাভজনক হবে। কারণ আপনি আপনার নিজের বাড়ির উঠোনে মুদি দোকান শুরু করতে পারেন। কিছু দিন পরে, আপনার ব্যবসার পরিধি অনেক বড় হবে, তাই মুনাফাও সেই অনুযায়ী বাড়বে।

বাড়িতে মুরগি পালনের ব্যবসা

স্বল্প পুঁজিতে বাড়িতে মুরগি পালন করাও একটি ভালো ব্যবসায়িক ধারণা। বিশেষ করে ঘরের মেয়েদের জন্য এটা খুবই লাভজনক ব্যবসা। প্রথমে অল্প পুঁজিতে ১০ থেকে ১৫টি হাঁস বা মুরগি কিনে কয়েকদিন রেখে তারপর বেশি দামে বিক্রি করুন। তাছাড়া মুরগির ডিম বিক্রি করেও অনেক টাকা আয় করা সম্ভব। ঘরে শুধু মেয়েরা কেন ছেলেরাও মুরগি পালন করে স্বাবলম্বী হতে পারে। বেকার না থেকে অল্প পুঁজিতে বাড়িতে মুরগি পালন করে অনেক টাকা আয় করা সম্ভব।

গরু-মহিষ পালনের দুগ্ধ খামারের ব্যবসা

ঘরে বসে বেকার না বসে কয়েকটি গরু বা মহিষ কিনে ডেইরি ফার্মের ব্যবসা শুরু করা সম্ভব। তারপর ব্যবসায় লাভজনক হলে ধীরে ধীরে আরও গরু-মহিষ কিনে বড় আকারের দুগ্ধ খামার গড়ে তোলা যায়। দুগ্ধ খামার ব্যবসায় পর্যাপ্ত সময় দিলে লাভ প্রত্যাশা ছাড়িয়ে যাবে। স্বল্প পুঁজিতে দুগ্ধ খামার ব্যবসাও একটি লাভজনক ব্যবসার ধারণা।

মোবাইল সরঞ্জাম এবং ইলেকট্রনিক্স বিক্রির ব্যবসা

আজকের যুগে আমাদের সবার হাতেই রয়েছে মোবাইল ফোন এবং বিভিন্ন ইলেকট্রনিক পণ্য। মোবাইল আনুষাঙ্গিকগুলির মধ্যে রয়েছে চার্জার, হেডফোন, ব্যাটারি, ফোন কভার, পাওয়ার ব্যাঙ্ক ইত্যাদি, অন্য ইলেকট্রনিক্সের মধ্যে রয়েছে মাইক্রোফোন, সাউন্ড বক্স, টিভি, স্মার্ট ঘড়ি ইত্যাদি।

বিদেশ থেকে মোবাইল ফোনের যন্ত্রপাতি ও ইলেকট্রনিক্স আমদানি করে স্বল্প পুঁজিতে গ্রামে ব্যবসা শুরু করা যায়। তাছাড়া, বাংলাদেশে বিভিন্ন আমদানিকারক রয়েছে যাদের কাছ থেকে কেউ খুচরা বিক্রেতা হিসাবে ক্রয় বিক্রয় করতে পারে। অল্প পুঁজিতে গ্রামে ব্যবসা করার ১০ টি আইডিয়া, তুলনামূলক কম পুঁজিতে মোবাইল ইকুইপমেন্ট এবং ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ব্যবসা করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করা যায়।

স্টেশনারি পণ্য বিক্রির দোকানের ব্যবসা

আমরা সবাই জানি আমাদের দেশে ছাত্রীর সংখ্যা অনেক বেশি। ফলস্বরূপ, এই বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীর মধ্যে বই, নোটবুক, কলম এবং পেন্সিলের মতো স্টেশনারি সামগ্রীর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। অল্প পুঁজিতে গ্রামে ব্যবসা করতে চাইলে একটি স্টেশনারি দোকান খুব লাভজনক হতে পারে তবে এক্ষেত্রে সমস্যা হল স্টেশনারি পণ্যের বিক্রয় অনুপাত তুলনামূলকভাবে কম। অল্প পুঁজিতে গ্রামে ব্যবসা করার ১০ টি আইডিয়া, এক্ষেত্রে মূল কারখানার পণ্য বিক্রি করলে একটু বেশি আয় করা সম্ভব। এই ধরনের ব্যবসার জন্য খুব বেশি মূলধনের প্রয়োজন হয় না তাই মূলধনের পরিমাণ কম হলে, আপনি আপনার স্টেশনারি পণ্য ব্যবসার ধারণা ব্যবহার করতে পারেন।

অনলাইন ডাটা এন্ট্রি থেকে আয়

কম্পিউটারের মাধ্যমে অনলাইনে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে তথ্য ইনপুট করাকে ডাটা এন্ট্রি বলে। এই ডেটা এন্ট্রি কাজটি অনলাইনে সবচেয়ে সহজ কাজগুলির মধ্যে একটি। কিছু নিয়ম জানা থাকলেই ডাটা এন্ট্রি করা যায়। আপনি যদি স্বল্প পুঁজিতে ঘরে বসে ব্যবসা শুরু করতে চান, তাহলে আপনি একটি কম্পিউটার কিনে অনলাইনে ডাটা এন্ট্রি শুরু করতে পারেন। কিভাবে অনলাইনে ডাটা এন্ট্রি কাজ শুরু করতে হয় সে বিষয়ে গুগলের প্রচুর নিবন্ধ রয়েছে। যে কোনো নিবন্ধ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পড়ুন এবং ব্যবসায় নামুন।

অনলাইন সার্ভে করে আয় করুন

অনলাইন জরিপ আয় আজকাল ঘরে বসে অনলাইন উপার্জনের অন্যতম সেরা উপায়। অনলাইন জরিপ শুরু করার আগে, আপনাকে জরিপ বলতে কী বোঝায় তা জানতে হবে। অনলাইন জরিপ মানে ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয়ে সারা বিশ্বের মানুষের বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন বা মতামত নেওয়া। সংক্ষেপে, অনলাইন জরিপ মানে অনলাইনে করা জরিপ। আপনি যদি অনলাইনে সার্ভে করে অর্থ উপার্জন করতে চান তবে আপনি নিজের ঘরে বসেই এটি করতে পারেন।

অনলাইনে বিজ্ঞাপন দেখে আয় করুন

শুধু বিজ্ঞাপন দেখেই টাকা রোজগার করা যায় শুনলে অনেকেই হয়তো হাসতে পারেন। কিন্তু গল্পটা সত্যি। অনলাইনে বিজ্ঞাপন দেখে আয় করার জন্য আমাদের দেশে অনেক ধরনের ওয়েবসাইট রয়েছে। এর মাধ্যমে আপনি এই ওয়েবসাইটগুলিতে আপনার জিমেইল অ্যাকাউন্ট খুলে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। অনলাইনে বিজ্ঞাপন দেখে অর্থ উপার্জন করতে আপনার যা দরকার তা হল একটি কম্পিউটার এবং একটি ইন্টারনেট সংযোগ৷

ফল চাষ ব্যবসার মাধ্যমে আয়

নতুন দেশি-বিদেশি ফল চাষ করে আয় করা আজকাল নতুন ব্যবসা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। দেশের অনেক পরিচিত ফলের পাশাপাশি বিদেশি অচেনা ফল চাষ করেও লাভবান হচ্ছেন অনেকে। অল্প পুঁজিতে গ্রামে ব্যবসা করার ১০ টি আইডিয়া, স্থানীয় কৃষি অফিস থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য পেয়ে ফল চাষের ব্যবসায় নামতে পারেন। তাছাড়া অনলাইনে বিভিন্ন জায়গায় ফল চাষের অনেক টিউটোরিয়াল পাওয়া যায়। এগুলো অনুসরণ করলে আপনি স্বল্প পুঁজিতে ফল চাষের ব্যবসা শুরু করার বিষয়ে ধারণা পাবেন।

মাছ চাষের মাধ্যমে আয়

মাছ-ভাতে আমরা বাঙালি। গ্রাম হোক বা শহরের খাবার, মাছের চাহিদা সব সময়ই থাকে বাঙালির। তাই মাছ চাষের মাধ্যমে ব্যবসা শুরু করে স্বাবলম্বী হওয়া সম্ভব। নিজের পুকুরে বা পুকুর ভাড়া করে অল্প পুঁজি মাছ চাষের ব্যবসা শুরু করে অনেক টাকা আয় করা সম্ভব।

মাছ চাষের মাধ্যমে দেশের অনেক যুবক বেকারত্ব থেকে মুক্তি পেয়েছে। মাছ চাষের মূল বিষয়গুলি জানতে এবং প্রশিক্ষণ সহ মাছ চাষ সম্পর্কে জানতে স্থানীয় মৎস্য অফিসে যোগাযোগ করুন। অল্প পুঁজিতে মাছ চাষের ব্যবসা করে অনেক টাকা আয় করা সম্ভব।

শেষ কথা

ঘরে বসেই করা যায় এমন দশটি ছোট ব্যবসার ধারণা নিয়ে আমাদের আজকের পোস্ট ছিল। এই পোস্টটি পড়লে স্বল্প পুঁজিতে ব্যবসা শুরু করার বিষয়ে পরিষ্কার ধারণা পাবেন। পোস্টটি ভালো লাগলে আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন। আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট বক্সে জিজ্ঞাসা করতে ভুলবেন না।

Related Articles

Stay Connected

0FansLike
3,761FollowersFollow
0SubscribersSubscribe

Latest Articles