কৃষি উদ্যোক্তাদের জন্যে ঋণ – নিতে পারবেন ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত

45

কৃষি উদ্যোক্তাদের জন্যে ঋণ – নিতে পারবেন ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত। আমাদের দেশে মনে করা হয় যে, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান  গুলো উদ্যোক্তা এবং ব্যবসায়ী দের ঋণ প্রাপ্তি তে সহায়তার পরিবর্তে অহেতুক ঝামেলার সৃষ্টি করে। কৃষি উদ্যোক্তা দের ৫০লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ খুজতে গিয়ে বিষয়টি ঢালাও ভাবে দেখা ঠিক নয়। আপনি একজন ভালো উদ্যোক্তা হলে যেমন ব্যবসা পরিচলনা করবেন নিয়ম নীতি অনুসরন করে, তেমনি আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান সমূহকে পদ্ধতি গত ভাবে নিয়ম কানুন মেনে চলতে হবে। তবে উদ্যোক্তা দের ঋণ পাওয়া একটি বড় ধরনের  চ্যালেঞ্জ-ই বটে। উদ্যোক্তা দের সাধারণ ভাবে ঋণ দেয় ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান সমূহ। এ জাতীয় প্রতিষ্ঠান এর লক্ষ্যই হলো উদ্যোক্তা এবং ব্যবসায়ী দের ঋণ ও অর্থায়ন এর ব্যবস্থা করা।

কোন কোন ব্যাংক ঋণ দেয়:
বাংলা দেশের বর্তমান অর্থ বাজারে এস এম ই খাতে অর্থায়নে জন্যে যে সমস্ত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান এস এম ই ব্যাংকিং শুরু করেছে তাদের তালিকা নিন্মে দেওয়া হলোঃ

(১) ব্র্যাক ব্যাংক

(২) বেসিক ব্যাংক

(৩) মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক

(৪) ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড

(৫) প্রাইম ব্যাংক লিঃ

(৬) এবি ব্যাংক

(৭) ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড

(৮) প্রিমিয়ার ব্যাংক

(৯) স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক

(১০) সিটি ব্যাংক লিমিটেড

(১১) মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিঃ

(১২) ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড

(১৩) ট্রাষ্ট ব্যাংক লিঃ

(১৪) ব্যাংক এশিয়া

(১৫) ডাচ বাংলা ব্যাংক লিঃ

(১৬) পূবালী ব্যাংক লিঃ

(১৭) জনতা ব্যাংক লিঃ

(১৮) অগ্রনী ব্যাংক লিঃ

(১৯) সোনালী ব্যাংক লিঃ

(২০) বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক প্রভৃতি।

ব্যাংক একাউন্ট খোলা:
ব্যাংক একাউন্ট খোলার জন্য প্রথমে আপনার পছন্দ মতো একটি ব্যাংক হতে ফরম সংগ্রহ করে নিতে হবে। ব্যাংক একাউন্ট খোলার জন্য প্রয়ো-জনীয় কাগজ পত্র সহ আবেদন জমা প্রদান করতে হবে। বিভিন্ন ব্যাংকে এই কাগজ পত্রের চাহিদা ভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। এছাড়া এ নিয়মের কিছু কিছু ক্ষেত্রে ও ভিন্নতা দেখা যায়।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:
১. ব্যাংক থেকে সরবরাহ কৃত ফরমে ব্যাংক একাউন্ট করার দর-খাস্ত।

২. দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।

৩. হালনাগাদ ট্রেড লাইসেন্স এর সত্যায়িত কপি।

৪. লিমিটেড বা পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হলে বোর্ড অব ডাইরেক্টরস-এর রেজুলেশন কপি অর্থাৎ ব্যাংক একাউন্ট খোলার সিদ্ধান্ত সহ কে কে ব্যাংক একাউন্ট অপারেট করবেন তাদের নাম উল্লেখ সহ গৃহীত সিদ্ধান্তের কপি।

৫. প্রতিষ্ঠান এর নিবন্ধন সনদ।

৬. মেম্বার বা সরকার কর্তৃক অনু-মোদিত সমিতি হতে নেয়া সদস্য সার্টিফিকেট।

৭. ঐ ব্যাংক এর অন্য কোন একাউন্ট হোল্ডার কর্তৃক আপনার ছবি ও আবেদন পত্রে স্বাক্ষর প্রয়োজন হবে এবং তাকে সনাক্ত কারী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়।

ইন্স্যুরেন্স:
একটি শিল্প কারখানায় সাধারনত দুই ধরনের ইন্স্যুরেন্স পলিসি গ্রহণ করতে হয়ে থাকে। মূল কার-খানা, বিল্ডিং, মেশিন, কাঁচা মালের জন্য যে কোন মালিক কে ফায়ার ও ফ্লাড পলিসি গ্রহণ করতে হয়। বিপদ কালীন সময় এই ইন্সুরেন্স একটি শিল্প কারখানা কে রক্ষা করতে পারে। আর কার-খানা চালু হওয়ার পর কাঁচা মাল আম-দানি ও রপ্তানির জন্য মেশিন পলিসি করতে হয়। আপনি পছন্দসই যে কোন ইন্স্যুরেন্স কম্পানি কে ই বেছে নিতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ টবে আলু চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে জেনে নিন

Comments are closed.