ট্রাক চালক থেকে শিল্পপতি হবার গল্প – আব্দুল খালেক পাঠান

ট্রাক চালক থেকে শিল্পপতি হবার গল্প – আব্দুল খালেক পাঠান

ট্রাক চালক থেকে শিল্পপতি আব্দুল খালেক পাঠান

ট্রাক চালক থেকে শিল্পপতি হবার গল্প – আব্দুল খালেক পাঠান। বাংলাদেশের অন্যতম সেরা কেয়া কসমেটিকসের মালিক। তিনি রাস্তার পাশে চকোলেট এবং বিস্কুট বিক্রি করে নিজের জীবন শুরু করেছিলেন। তারপরে ট্রাকচালক হন। স্কুলে পড়ার সময় টিফিনের সাশ্রয়কৃত অর্থ দিয়ে তিনি চকোলেট বিস্কুট কিনতেন। তারপরে তিনি রাস্তার পাশে দোকান বসিয়ে বিক্রি করতেন। তার কিছু লাভ হয়েছিল এবং সে সেই লাভের লোভে পড়ে গেল।

তিনি বন্ধুর সাথে মুরগির ব্যবসা শুরু করেছিলেন। তিনি স্থানীয় বাজার থেকে মুরগি কিনে দুরের বাজারে বিক্রি করতেন। তিনি যৌথ উদ্যোগ থেকে লাভের জন্য অর্থ ব্যয় করেনি এবং ফলস্বরূপ তার মূলধন বৃদ্ধি পেয়েছিল। তার পরিবারের কেউ মুরগির ব্যবসা পছন্দ করেনি। তাই তিনি মুরগি কিনে সেগুলি তার বন্ধুর বাড়িতে রেখেছিলেন। একদিন তার বন্ধু বলেছিল যে মুরগি শিয়ালরা নিয়ে গেছে। তার বন্ধু তাকে কিছু মুরগির ডানা এবং মায়ার কান্নায় ভোলানোর চেষ্টা করেছিল কিন্তু সে বুঝতে পেরে কান্নায় ভেঙে পড়ল। সে ভেবেছিল আমি বুঝতে পেরেছি আমি আর ব্যবসায়ী হতে পারবো না। কিছু দিন পরে তিনি তার দাদা-দাদির বাড়িতে যান এবং সেখান থেকে কিছু অর্থ সংগ্রহ করেছিলেন। আবার নতুন উদ্যোগ নিয়ে ব্যবসা শুরু করলেন তিনি।

১৯৯৮সালে তিনি ম্যাট্রিক পাস করেন এবং বিয়ে করেন। তাঁর স্ত্রী ৮ শত টাকা বাঁচিয়ে সেই অর্থ দিয়ে তার স্বামীকে একটি নতুন স্বপ্ন দিয়েছেন। তিনি আগুনের কাঠ কেনা বেচার ব্যবসা শুরু করেছিলেন। তারপরে তার স্ত্রী তাকে তার কিছু গহনা দিয়েছিলেন এবং এটি তুনি ৫ হাজার টাকায় বিক্রি করেন। সে টাকা দিয়ে তিনি একটি পুকুর ইজারা দিয়ে রুই মাছের পোনা ছেড়ে দেয়। তবে মাছটি বাড়তে কমপক্ষে তিন বছর সময় লাগবে। তিনি ধৈর্য ধরতে পারেননি তাই তিনি এক বছর পর সব মাছ বিক্রি করেছিলেন। পরে তিনি আবার কাঠের ব্যবসা শুরু করেন এবং তারপরে তিনি ৬০ হাজার টাকা বেতনে চাকরি নেন তবে তিনি সেখানে বেশি দিন কাজ করতে পারেননি।

আব্দুল খালেক পাঠান, চাকরি ছেড়ে যাওয়ার পরে তিনি অগ্রগতি থেকে ৪০,০০০ টাকা অগ্রিম দিয়ে একটি ট্রাক কিনেছিলেন। ড্রাইভারের সাথে তিনি ১৫ দিনের মধ্যে ট্রাক চালানো শিখেন। যখন তিনি ট্রাক চালানো শিখে যান তখন তার রাস্তায় নামার পালা। ড্রাইভার দিনের বেলা ডিউটিতে থাকে এবং রাতে তিনি নিজে ট্রাক চালায়। এইভাবে ছয় মাসে তিনি একটি বড় মূলধন তৈরি করেছিলেন এবং এটি পূবালী ব্যাংকে রেখেছিলেন।

একদিন এক ব্যাংক কর্মকর্তা বললেন ইটভাটা দাও প্রয়োজন হলে আমরা লোন দেব। পরে তিনি জমি কিনেন কিন্তু ব্যাংক তাকে লোন দেবেনা বলে দেয়। সেও সময় তিনি বড় বিপদে পড়েছিলেন। তারপরে শ্বশুরবাড়ী তাকে সহায়তা করেছিলেন। তিনি ব্যাংকে দুই লাখ টাকা দিয়েছেন এবং পরের বছর তিনি সোনালী ব্যাংক থেকে তিন লাখ টাকা পেয়েছিলেন। তারপরে তার ইট ভাটা পাঁচটি হয়ে যায়। এখন প্রতি বছর প্রায় ২ কোটি টাকার ইট তৈরি হয় সেই ভাটা থেকে।তারপরে তিনি একটি বুনন ব্যবসায়ের পরিকল্পনা করেছিলেন তবে ব্যাংক আবারও ঋণ দেয় না।

এজন্য একজন ব্যাংকের কর্মকর্তা বলেছিলেন আপনি কেবল মেট্রিক পাস করেন। বুনন ব্যবসা ১০০ শতাংশ রফতানি ব্যবসা তাই আপনার বিদেশী ক্রেতাদের সাথে ইংরেজিতে কথা বলতে হবে। আপনি ইটের ব্যবসা করেছেন তাই আপনি এটি করতে পারবেন না। তিনি ব্যাখ্যা করতে শুরু করলেন, যে যে ক্রেতা বিদেশ থেকে আসবেন তিনি পণ্যগুলির গুণমানটি দেখবেন। তিনি বললেন, আমি ইংরেজি জানি কিনা তা দেখতে পাবেনা এবং আমার কাছে ইংরেজি জানা লোক রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ সকল ব্যবসায়ী উদ্যোক্তা নয় কেন

পরে তিনি ভারত থেকে আঠারটি বোনা মেশিন কিনেছিলেন এবং পুরোদমে কাজ শুরু করেছিলেন। এক পর্যায়ে ব্যাংকের লোকেরা বুঝতে পেরেছিল যে তিনি ইংরেজি না জেনেই এই লাইনে কাজ করতে পারে। সফল হতে গেলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সদয় হয়ে তাকে এক কোটি পাঁচ লক্ষ টাকা ঋণ দিয়েছিল। তাঁর শিল্প এখন প্রতি বছর ৪০ কোটি টাকার পোশাক রপতানি করেন। সেখানে প্রায় তিন হাজার লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। তারপরে তিনি নারকেল তেল, গুঁড়ো দিয়ে প্রসাধনী তৈরি শুরু করলেন।

আব্দুল খালেক পাঠান, মনে করেন সততা ও কঠোর পরিশ্রমের বিকল্প নেই, সাফল্য আসবে। সর্বদা মনে রাখবেন যে, আপনি কখনই অন্যকে ঠকিয়ে বড় হতে পারবেন না। তিনি তার বন্ধুকে মনে করিয়ে দেন যে, সেই মুরগির ব্যবসার বন্ধু কিন্তু এখনও কারখানার শ্রমিক হিসাবে রয়েছেন।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2021 UddoktaLab
Design BY NewsTheme