সামাজিক উদ্যোক্তা হিসেবে নারীরা কতটা এগিয়ে !

সামাজিক উদ্যোক্তা হিসেবে নারীরা কতটা এগিয়ে !

সামাজিক উদ্যোক্তা হিসেবে নারীরা কতটা এগিয়ে

সামাজিক উদ্যোক্তা হিসেবে নারীরা কতটা এগিয়ে, বিশ্বের জনসংখ্যার অর্ধেক নারী হওয়ায় নারী ছাড়া এই পৃথিবীর সামগ্রিক বিকাশ কখনই সম্ভব নয়। আমাদের দেশেও একই অবস্থা। তবে অপ্রীতিকর সত্যটি হলো বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে নারীর অংশগ্রহণ সর্বদা পুরুষের তুলনায় কম। তবে আশার কথা হলো কর্মক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ ও অবদান বিগত সময়ের যে কোন সময়ের তুলনায় দিন দিন বাড়ছে। নারীরা বিভিন্ন প্রতিকূলতা কাটিয়ে উঠেছে। আজ মহিলারা পুরুষদের পাশাপাশি বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক কর্মকাণ্ডে অংশ নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়ছে পুরুষের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে।

আজ মহিলারা কেবল চাকরি নয় বরং তারা বিভিন্ন স্বতন্ত্র ব্যবসায়ের উদ্যোক্তা। বর্তমানে মহিলারা পরিবার ছাড়াও দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন। তাদের নিবেদিত প্রচেষ্টার কারণে অর্থনীতির চাকা দিন দিন আরও বেশি চলমান। বিশেষ করে চাকরি ও ব্যবসাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ বাড়ছে। কর্মশালায় মহিলাদের অংশগ্রহণ প্রশংসনীয়ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত কয়েক বছর ধরে সামগ্রিক অর্থনীতিতে নারীর অবদান ক্রমবর্ধমান। আজ মহিলারা সফলভাবে এমন কাজগুলো করছেন যা কয়েক বছর আগে কেবল ছেলেরা করতে পারতো।

এছাড়াও যদি সামাজিক সংগঠনগুলি  ইতিবাচক উদ্যোগ নিয়ে থাকে তবে সমাজ, অর্থনীতি ও রাষ্ট্রের ক্ষেত্রে উল্লেখ যোগ্য অগ্রগতি হবে বলে আশা করা যায়। বাংলাদেশের কিছু নারী উদ্যোক্তার কথা জেনে নেওয়া যাক। যাদের মধ্যে কিছু উদ্যোক্তা শত বাঁধা অতিক্রম করে আজ তাদের জায়গায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছে এবং কয়েক হাজার নারী উদ্যোক্তা কে অনু-প্রাণিত করার জন্য নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে।

তাঁদের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য সারা দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ছোট মহিলা উদ্যোক্তাদের দ্বারা উৎপাদিত পণ্য ও পরিষেবাদি বিপণন ও বাজারজাত করা। এটি নারী উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে ত্বরান্বিত করবে। নারীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। নারী-পুরুষের মধ্যে বৈষম্য হ্রাস পাবে। সর্বোপরি পর্যায়ক্রমে দেশে নারীর ক্ষমতায়ন এবং দারিদ্র্য বিমোচন হবে।

প্রতি বছর আন্তর্জাতিক মহিলা উদ্যোক্তা দিবস পালন করা হয়। এই দিনটি সারা বিশ্বব্যাপী এবং বাংলাদেশে প্রতি বছর ১৯ নভেম্বর পালিত হয়। তবে আমাদের মহিলাদের এমনভাবে গড়ে তুলুন যাতে প্রতিদিন তাদের জন্য এই দিবস উদযাপিত হয়। আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে আজও মহিলাদের বাইরে কাজের পথে বাঁধা থাকে। একজন মহিলাকে ঘরের বাইরে কাজ করতে অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়।

প্রথম বাঁধা আসে পরিবার থেকে তারপরে রয়েছে সমাজ ও রাষ্ট্র। তবে যারা এই বাঁধা অতিক্রম করবেন তারা সফল হবেন। তাদের স্বপ্ন পূরণ করতে সক্ষম হবেন। যেন প্রতিটি ঘরে ঘরে নারী উদ্যোক্তা গঠিত হয়, যেন কোনও মহিলা হারিয়ে না যায়, একটি স্বপ্নও ছিন্নমূল না হয়।

পুরুষতান্ত্রিক এই সমাজে একজন মহিলাকে সর্বদাই তার মূল্য প্রমাণ করতে হয়। তিনি একজন পুরুষ হিসাবে নয় বরং একজন মহিলা হিসাবে মূল্যবান এটা মানতে কেউ প্রস্তুত নয়। তবুও মহিলারা পুরুষদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলেছেন তাদের নিজস্ব প্রতিভা এবং প্রজ্ঞা দিয়ে। আমাদের জীবনের একটিও ক্ষেত্র খুঁজে পাওয়া যাবে না যা মহিলাদের পদক্ষেপে সম্বোধন করা হয়নি। নারী, পুরুষরা আমাদের সামাজিক, রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে একসাথে কাজ করছে। যদিও বিপুল সংখ্যক সামাজিক উদ্যোক্তা এখন পুরুষ, বহু মহিলা সামাজিক উদ্যোক্তা বিশ্ব মঞ্চে নিজের জায়গা তৈরি করেছেন। তাদের সামাজিক উদ্যোগগুলি আমাদের প্রতিদিনের জীবনে নতুন রূপ এবং বৈচিত্র্যের ছোঁয়া এনে দিয়েছে।

সমাজের বিভিন্ন সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধান করার জন্য সামাজিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। একটি সামাজিক উদ্যোক্তা একটি সামাজিক সমস্যা সমাধানে বা সমাজের একটি সিস্টেমকে উন্নত করার দিকে মনোনিবেশ করে উদ্যোগ গ্রহণ করে এর মূল উদ্দেশ্য সামাজিক লক্ষ্য অর্জন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সামাজিক উদ্যোগটি পরিবেশ এবং জনগণের উপকারের জন্য বাণিজ্যিক কৌশলগুলি বাস্তবায়ন করা হয়। উদ্যোক্তারা সামাজিক উদ্যোগ থেকে অর্থপার্জন করতে পারে বা না পারে তবুও তারা কাজটা মন দিয়ে করে কারণ সামাজিক উদ্যোগের প্রধান লক্ষ্য সামাজিক জীবনকে উন্নত করা।

মানুষের সামাজিক জীবনকে আরও উন্নত করতে বিশ্বজুড়ে হাজার হাজার মহিলা অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন। একজন মহিলার উদ্ভাবনী দক্ষতা, তার সৃজনশীলতা যে কোনো সমস্যার সহজ সমাধান খুঁজে পাওয়ার দক্ষতা এবং বার্ধক্য দেখার তার দৃষ্টিভঙ্গি তাকে একটি দক্ষ সামাজিক উদ্যোক্তা করে তুলেছে। কয়েক শতাব্দী ধরে চার দেয়ালের মধ্যে আটকে থাকা মহিলারা কীভাবে বাধাগুলি কাটিয়ে উঠতে হয় জানেনা। বিশ্বের সর্বাধিক বিচিত্র প্রতিষ্ঠানটি পরিবার এবং পরিবারের সবচেয়ে শক্তিশালী সদদ্য হলো একজন মহিলা। সে তার পরিবারের প্রতিটি সদস্যের সমস্যাগুলি বোঝে। তাদের প্রয়োজনীয়তা বোঝে। তিনি কীভাবে পরিবারের সবাইকে ভাল রাখতে পারবেন তা তিনি জানেন। মহিলারা সবার জন্য পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, শিশুর যত্ন, স্বাস্থ্যকর বাড়ির পরিবেশ এবং স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করেন।

উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে শুরু করে মানুষের স্বাস্থ্য ও সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে সামাজিক মহিলা উদ্যোক্তারা কাজ করছেন। কেউ মেয়েদের পড়াশোনা নিশ্চিত করতে কাজ করছেন কেউ বাচ্চাদের স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করছেন। সামাজিক উদ্যোগের মাধ্যমে মহিলারা, নারীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করছেন। দরিদ্র মানুষের মাথার উপরে ছাদ রাখার ব্যবস্থা করছেন। কেউ মানবাধিকার পূরণের জন্য দায়িত্ব নিচ্ছেন। প্রযুক্তিগত বিকাশের জন্য মহিলারাও দায়িত্ব নিচ্ছেন। তিনি সাধারণ মানুষের মধ্যে সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত করছেন। যে নারীরা বিশ্বের সেরা কিছু সামাজিক উদ্যোগ নিয়েছেন তাদের মধ্যে হলেন শিজা শাহেদ, সুরভিন মুয়াজান, ব্রিট গিলমোর, অড্রে চ্যাং, সাকিনা ইয়াকুবি, মল্লিকা দত্ত, হেইডি কুন প্রমুখ।

আরও পড়ুনঃ অল্প টাকায় ব্যবসার আইডিয়া জেনে ব্যবসা শুরু করুন

জনসংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশ বিশ্বে নবম স্থানে রয়েছে। আমাদের ছোট্ট দেশে প্রায় ১৬০ মিলিয়ন মানুষ বসবাস করে। এই বিশাল জনসংখ্যার অর্ধেক নারী কিন্তু বাংলাদেশ সামাজিক বিকাশে পিছিয়ে থাকার মূল কারণগুলির মধ্যে একটি হলো সমাজে মহিলাদের নিম্নমানের অবস্থান। তবে এই ছবিটি ধীরে ধীরে পরিবর্তিত হচ্ছে। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রতি ১০০ জন সামাজিক উদ্যোক্তার মধ্যে একজন হলেন মহিলা। মহিলা সামাজিক উদ্যোগে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। বর্তমানে প্রায় 20% সামাজিক সংগঠন মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত হয়। এই সংস্থাগুলি মূলধারার সংস্থাগুলির চেয়ে বেশি জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। ৪.৮ শতাংশ মহিলা বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানে প্রধান পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন।

বাংলাদেশের সামাজিক বিকাশে নারীর ভূমিকা অনস্বীকার্য। মহিলারা গভীরভাবে পর্যালোচনা করে সমাজের সমস্যাগুলি সমাধান করার জন্য অভিনব ধারণা নিয়ে এসেছেন। বিভিন্ন সামাজিক উদ্যোগের মাধ্যমে তারা নারীদের জন্য নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করছে। এটি পিছিয়ে পড়া লোকদের জীবনযাত্রার উন্নত করছে। অর্থনৈতিক উন্নয়ন কেবল সামাজিক উদ্যোগের মাধ্যমে নিরাপদ স্বাস্থ্য এবং মানসিক স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা নয়, মহিলারা মৌলিক মানবাধিকার আদায়ের জন্যও কাজ করে যাচ্ছেন। একটি উন্নয়নশীল দেশের সকল নাগরিককে অবশ্যই এর উন্নয়নের জন্য কাজ করতে হবে। আমাদের দেশের মহিলারা আর ঘরে বসে থাকেনা। তারা নিজেরাই উদ্যোক্তা হয়ে উঠছে এবং সামাজিক উদ্যোগের মাধ্যমে উদ্যোক্তা ও স্বাবলম্বী হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে। সেই দিন খুব বেশি দূরে নয় যখন বাংলাদেশের মহিলাদের গৃহীত সামাজিক উদ্যোগগুলি বিশ্বজুড়ে পরিচিত হবে।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2021 UddoktaLab
Design BY NewsTheme